চ্যারিটেবল মামলা: ১৩ মার্চ পর্যন্ত জামিন পেলেন খালেদা জিয়া

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ২:০৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৮ | আপডেট: ২:০৩:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৮
চ্যারিটেবল মামলা: ১৩ মার্চ পর্যন্ত জামিন পেলেন খালেদা জিয়া

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আগামী ১৩ মার্চ পর্যন্ত জামিন পেয়েছেন বিএনপির চেয়ারপরসন খালেদা জিয়া। সোমবার রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন।

আজ এ মামলায় খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা সংক্রান্ত আদেশ দেওয়ার কথা ছিল। তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের জামিন বাড়ানোর আবেদনের পর বিচারক এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে ১৩ ও ১৪ মার্চ এ মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন ধার্য করেন আদালত।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের পর থেকে খালেদা জিয়া কারাগারে। আর ২৫ জানুয়ারি এই মামলায় যুক্তি উপস্থাপন শেষ হওয়ার পাঁচ দিন পর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়। ৩০, ৩১ জানুয়ারি ও ১ ফেব্রুয়ারি যুক্তি উপস্থাপন শেষে ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি যুক্তি উপস্থাপনের দিন ঠিক করেন বিচারক।

আর খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় তাকে হাজির করতে প্রডাকশন ওয়ারেন্ট চেয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি আবেদন করেন মামলার বাদী দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। তবে ২৫ ফেব্রুয়ারি শুনানি শেষে কোনো আদেশ না দিয়ে আজ এ বিষয়ে আদেশ দেয়ার কথা বলেন বিচারক। আর সেদিন খালেদা জিয়ার জামিন বাড়ানোর আবেদন করেন তার আইনজীবীরা।

বেলা সোয়া ১১টার দিক শুনানি আবার শুরু হলে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, খালেদা জিয়া বর্তমানে কারাগারে আছেন। এই মামলায় আসামির উপস্থিতিতে যুক্তিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। তাই খালেদা জিয়াকে হাজির করতে আদালতের প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট দেয়া ছাড়া উপায় নাই।

চলতি সপ্তাহের একটি তারিখেই এই ওয়ারেন্ট দিয়ে যুক্তি উপস্থাপনের তারিখ দিতে বিচারকের প্রতি আবেদন জানান দুদকের আইনজীবী।

তবে খালেদা জিয়ার আইনজীবী আবদুর রেজ্জাক খান সময় চেয়ে বলেন, ঢাকা বারের নির্বাচন আছে, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতিরও একটি পার্টি আছে। আবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার নথিপত্র পাঠাতে উচ্চ আদালত যে নির্দেশ দিয়েছে, তা পালন করতে হবে ৭ মার্চের মধ্যে। এই নথি পাওয়ার পর সাবেক প্রধানমন্ত্রীর জামিন আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবে হাইকোর্ট। সে আদেশ দেখে তারিখ দিলে ভালো হয়।

এরপর বিচারক আখতারুজ্জামান বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আরও যেসব মামলা চলমান রয়েছে, সেগুলোতে ১২ মার্চ অবধি শুনানির তারিখ রয়েছে। ফলে এর আগে এই মামলার যুক্তি উপস্থাপনের সুযোগ নেই। ১৩ মার্চ অবধি খালেদা জিয়ার জামিন বাড়িয়ে সেদিন এবং তার পরদিন যুক্তি উপস্থাপনের তারিখ দেন বিচারক।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে দুদক। সময়ের কণ্ঠস্বর