ঢাকা, ||

সর্বোচ্চ কত উচ্চতার ভবন নির্মাণ সম্ভব ?


তথ্যপ্রযুক্তি

প্রকাশিত: ৬:৫২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

হাজার হাজার বছর আগে থেকেই সুউচ্চ ভবন বা কাঠামো নির্মাণ হয়ে আসছে। একের পর এক সুউচ্চ ভবন তৈরির ঘটনা থেকে যে প্রশ্নটি সামনে আসছে তা হলো, এমন কি কোনো পয়েন্ট আছে, যে পয়েন্টে পৌঁছানোর পর আমরা আর তার চেয়ে বেশি লম্বা বিল্ডিং বা ভবন তৈরি করতে পারবো না? থাকলে কোন সে পয়েন্ট?

ইউটিউব চ্যানেল রিয়েল লাইফ লোর-এ সম্প্রতি একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে আপনি যা ধারণা করেন তার চেয়েও বেশি লম্বা বিল্ডিং তৈরি করা সম্ভব।

তাহলে চলুন হিসাবটা শুরু করা যাক বর্তমান বিদ্যমান কাঠামোগুলোর মাধ্যমে। আপনি যে ভবনে বসবাস করেন সম্ভবত হতে পারে সেটি ৪.৫ মিটার (১৫ ফুট) লম্বা।

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু স্ট্যাচু (মূর্তি) হচ্ছে স্প্রিং টেম্পল বুদ্ধ, এটি প্রায় ২৮ গুণ বেশি লম্বা, যা ১২৮ মিটার (৪২০ ফুট)। এটি কত লম্বা তা ব্যাখা করার জন্য বলছি যে, আপনি যদি মূর্তিটির মাথা থেকে ঝাপিয়ে পড়েন তাহলে মাটিতে পড়ার আগে ৫.৫ সেকেন্ড সেদিকে তাকিয়ে থাকতে পারবেন।

গিজের গ্রেট পিরামিডটি এর চেয়ে কিছুটা লম্বা। ১৪৬ মিটার (৪৮০ ফুট)। ৪,৫০০ বছরের পুরোনো একটি বিল্ডিংয়ের জন্য এটা খুব বাজে উচ্চতা না। অবিশ্বাস্যভাবে, এই বিশাল পিরামিড ছিল ৩,৮৮১ বছর পর্যন্ত মানুষের গড়া সবচেয়ে উচ্চতম পিরামিড।

পরবর্তীতে এটাকে মাত্র এক ডজন অথবা তার কিছু মিটার বেশি উচ্চতায় পেছনে ফেলেছিল ১৩১১ সালে ইংল্যান্ডে নির্মিত লিংকন ক্যাথেড্রাল। ১৬০ মিটার (৫২৪ ফুট) উচ্চতা নিয়ে এটি ১৮৮৪ সাল পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিল্ডিং ছিল। এরপর এই খেতাব কেড়ে নেয় ওয়াশিংটন স্মৃতিস্তম্ভ। তবে ১৬৯ মিটার (৫৫৫ ফুট) উচ্চতার এই বিশাল কাঠামোটি কেবল একটি সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য সবচেয়ে লম্বা ছিল।

নিচের ভিডিওটি সব ব্যাখ্যা দেবে। কিন্তু আমাদের কৌতুহলের ব্যাপারটির কি হবে? মানুষ কখনো নির্মাণ করতে পারে সবচেয়ে বড় জিনিসটা কি?

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু বিল্ডিং হচ্ছে, বুর্জ খলিফা। এটি অসাধারণ উচ্চতার, ৮৩০ মিটার (২,৭২২ ফুট)। এই বিল্ডিং এটির আগে নির্মিত সবকিছুকে বামনে পরিণত করেছে। এই বিল্ডিংয়ের ওপর থেকে নিচে পড়ে যেতে আপনি অনেক বেশি সময় পাবেন, ২০ সেকেন্ড।

কিন্তু এই সীমাই সর্বশেষ নয়- অনুমান করে বলা যায় যে, আমরা এর চেয়ে আরো অনেক অনেক বেশি উচ্চতায় যেতে পারি। তত্ত্বমতে, সত্যিই এটি সর্বোচ্চ উচ্চতা নয়। যা হোক, আপনাকে আপনার ওপরের কাঠামোর ওজনের ওপর ভিত্তি করে নিচের বেজ আরো প্রসারিত করতে হবে।

কিন্তু যুক্তি দিয়ে বললে, পৃথিবী যেহেতু গোলাকার, তাই এটি স্পষ্টত বাস্তব জীবনে কাজ করে না।

বর্তমানে আমাদের যে প্রযুক্তি রয়েছে, সেই প্রযুক্তিতে আমরা সম্ভবত সবচেয়ে লম্বা বিল্ডিং হিসেবে নির্মাণ করতে পারবো এক্স-সিড ৪০০০ বিল্ডিং। এই বিল্ডিং এখনো নির্মিত হয়নি কিন্তু এটির পরিকল্পনা সম্পন্ন হয়েছে।

এই বিশাল কাঠামো ৪০০০ মিটার বা ৪ কিলোমিটার (২.৪ মাইল) লম্বা হবে। ১৯৯৫ সালে জাপানের টইসেই কর্পোরেশন এই ভবনটির ডিজাইন করেছে। কিন্তু যদি আপনি মনে করেন যে এই কাঠামো নির্মাণ তুলনামূলকভাবে সহজ হবে, আবার চিন্তা করুন।

এই কাঠামোটির ভিত্তিটি ৬ কিলোমিটার (৩.৭ মাইল) হতে হবে এবং যেখানে এটি তৈরি করা হবে সেখানে প্রায়ই আবহাওয়া ব্যাহত হবে। এক্স-সিড টাওয়ারটি প্রায় ৮০০ তলা সম্পন্ন হবে যেখানে প্রায় ১ মিলিয়ন মানুষ থাকতে পারবে। ২০১৭ সালে যদি এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় তা প্রায় ১.৪ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিল গেটসের সম্পদের দ্বিগুণ।

কিন্তু এর চেয়েও বড় কাঠামো কি নির্মাণ সম্ভব হবে। উত্তর খুঁজে পেতে নিচের ভিডিওটি দেখুন। আমরা যা বলবো তা হলো অবিশ্বাস্য শোনালেও, সেটি একটি স্পেস এলিভেটর হবে।

Top