ঢাকা, ||

শেবাচিমে ওষুধ মজুদে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল: মামলা


সাব লিড নিউজ

প্রকাশিত: ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

শেবাচিম হাসপাতালের স্টাফ কোয়ার্টারের পুকুর থেকে লক্ষাধিক টাকার ও মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ড থেকে ১৫ লাখ টাকার ওষুধ মজুদের ঘটনায় এবার হাসপাতাল প্রশাসনের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
সোমবার রাতে হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ এসএম সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে অবৈধভাবে ওষুধ জমিয়ে রাখার দায়ে আটককৃত ইনচার্জ বিলকিস জাহান ও অফিস সহায়ক শেফালী বেগমকে আসামী করা হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করে শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ এসএম সিরাজুল ইসলাম জানান, মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডে ওষুধ সরবরাহ ও বিতরণের হিসাব নিরীক্ষার জন্য গঠিত তদন্ত কমিটি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সোমবার বিকেলে তাদের প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। ছয় সদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটির প্রধান উপ-পরিচালক স্বাক্ষরিত প্রতিবেদনে সরকারী ওষুধ পাচারের সাথে শুধুমাত্র সেবিকা ও কর্মচারীরাই দায়ী নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে। পাশাপাশি এরসাথে সাব স্টোরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও জড়িত থাকতে পারে বলে মন্তব্য করা হয়। এছাড়া দায়িত্বে গাফিলতির বিষয়ও রয়েছে, তাই বিষয়টি নিয়ে বিভাগীয় তদন্তের পাশাপাশি আইনী তদন্তের প্রয়োজন বলেও তদন্ত প্রতিবেদনে শুপারিশ এবং পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
পরিচালক আরও জানান, শেফালীর পুত্র আমাদের স্টাফ নয়। তবে সম্প্রতি হাসপাতালে স্থগিত হওয়া নিয়োগ কার্যক্রমে মামুনের চাকুরী হলেও তিনি কর্মস্থলে যোগদান করতে পারেনি। এসব কারনে মামুনকে ওই মামলায় আসামী করা হয়নি। তবে পুলিশের তদন্তে যদি মেডিসিন স্টোরের কেউ এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার বিষয় বেড়িয়ে আসে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Top