ঢাকা, ||

ব্যাংক আমানতে আবগারি শুল্ক আরোপ অন্যায্য


অর্থনীতি

প্রকাশিত: ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ৪, ২০১৭

দীন মোহাম্মাদ দীনু

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি

২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে ব্যাংকে রাখা এক লাখ থেকে ১০ লাখ টাকার ওপর ৮০০ টাকা আবগারি শুল্ক আরোপের প্রস্তাবের সমালোচনা করেছে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই)। এটা আর্থিক অন্তর্ভুক্তির নীতির বিপরীত বলে মনে করে তারা।

গতকাল শনিবার রাজধানীর গুলশানের লেকশোর হোটেলে এমসিসিআইয়ের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর ব্যবসায়ীদের মতামত প্রদান অনুষ্ঠানে এ কথা বলা হয়। সংগঠনের সভাপতি নিহাদ কবির লিখিত বক্তব্যে এ কথা বলেন।

ব্যাংক অ্যাকাউন্টে এক লাখ টাকা থাকলেই আবগারি শুল্ক কাটা হবে—নিহাদ কবির বলেন, এটা অন্যায্য দাবি। তিনি বলেন, এটা আর্থিক অন্তর্ভুক্তির নীতির বিপরীত ধারণা। এ সিদ্ধান্ত থেকে সরকারের সরে আসা উচিত। সভাপতি বলেন, সরকার ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে যেসব পরামর্শ চেয়েছে এবং নিয়েছে তার অধিকাংশই বাজেট প্রস্তাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। আর্থিক খাতে শৃঙ্খলা আনার জন্য সুনির্দিষ্ট কোনো ব্যবস্থার উল্লেখ না থাকাও উদ্বেগের বিষয়।

গার্মেন্ট খাতের গ্রিন ফ্যাক্টরির জন্য বাড়তি সুবিধা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা সরকারের সঙ্গে শক্তভাবে দ্বিমত পোষণ করছি। শুধু গ্রিন ইন্ডাস্ট্রি কিছু সুবিধা পাবে, অন্য সব সেক্টর কেন সুবিধাগুলো পাবে না? তাদের জন্যও একই সুবিধা প্রযোজ্য হওয়া উচিত। ’

অনুষ্ঠানে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর করায় আরো সময় নেওয়া, আয়করসীমা অপরিবর্তিত থাকায় মধ্যবিত্তের ওপর চাপ, শিক্ষিত বেকারদের কাজে লাগানোর বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা বাজেট প্রস্তাবে না থাকা নিয়েও আলোচনা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাস উদ্দিনও ব্যাংক আমানতে আবগারি শুল্ক বসানোর কঠোর সমালোচনা করেন। এ প্রস্তাব থেকে সরকারকে সরে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন তিনি। তিনি বলেন, শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এর জন্য সরকার অনেকাংশে দায়ী। চাকরির সুযোগ কমে গেছে। বিষয়টি নিয়ে চিন্তার সময় এসেছে। এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে হলে সবাইকে মিলে কাজ করতে হবে।

সাবেক গভর্নর সরকারকে ব্যবসার পরিবেশ সৃষ্টি ও খরচ কমিয়ে আনার বিষয়ে নজর দিতে বলেন। ১৫ শতাংশ ভ্যাট হারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, অর্থনীতির থিওরি বলে, একটা পণ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে গ্রাহকের হাত পর্যন্ত পৌঁছতে ১৫ শতাংশ মোট ভ্যাট থাকতে পারে। কিন্তু বাজেট প্রস্তাব অনুযায়ী প্রতিটি ধাপেই ১৫ শতাংশ করে ভ্যাট দিতে হবে। এটা অনেক উন্নত দেশের ১৪ শতাংশের গড় হারকেও হার মানাচ্ছে।

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে খরচ কমানো এবং এর মাধ্যমে কিছু টাকা পাচার হয়ে যাওয়ার বিষয়ে সরকারকে নজর দিতে বলেন এ অর্থনীতিবিদ।

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘ব্যাংকে টাকা রাখার ওপর আবগারি শুল্ক ধার্যের বিষয়ে অনেক আলোচনা হচ্ছে। এটা নিয়ে সংসদে আলোচনা হওয়া দরকার। আমি মনে করি, সরকার ব্যবস্থা নেবে। ’

আলোচনায় বিডা, পিআরআই ও এমসিসিআই প্রতিনিধিরা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ওপর ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেন।

-কালের কণ্ঠ

Top