ঢাকা, ||

বিএনপির ২২ ট্রাক ত্রাণ আটকে দিলো পুলিশ


রাজনীতি

প্রকাশিত: ৮:০৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ নিয়ে উখিয়ে যেতে পারেনি বিএনপি নেতারা। কক্সবাজার জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বুধবার বিকেল ৫টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানান ত্রাণ নিয়ে যাওয়া বিএনপির প্রতিনিধি দল। সম্মেলন থেকে হোটেলে যাওয়ার পথে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের গাড়িবহরও আটকে দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘বিএনপি এখানে রাজনীতি করতে আসেনি, ত্রাণ দিতে এসেছিল। সেই ত্রাণ বিতরণে বাধা দিয়ে সরকার অপরাধ করেছে। মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পগুলোতে যারা আছেন তাদের কোনো গোসল নেই, পানি নেই, খাদ্য নেই। ওখানে মানবিক বিপর্যয় চলছে। ওখানে গেলে আমরা তা জেনে যাব। সেজন্যই আমাদের সেখানে যেতে দেয়া হয়নি।’
মির্জা আব্বাস আরো বলেন, বিএনপির ত্রাণগুলো সরকারের কাছে (জেলা প্রশাসন) জমা দিতে হবে। তারাই সেটা বিতরণ করবে! আমরা আমাদের ত্রাণ কখনোই সরকারের কাছে জমা দেব না। বিএনপি তো ডিসি ও আওয়ামী লীগের কথা মতো চলবে না। আমাদের ত্রাণ আমরাই দেব।
ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, সরকার ইচ্ছা করলে আমাদের ত্রাণ সিজ করতে পারে!
২২টি ট্রাকে যাওয়া বিএনপির ত্রাণ দলটি ৯ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের জন্য ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে কক্সবাজার এসেছিল। এর মধ্যে ৯ হাজার পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী ও সাড়ে ৩ হাজার পরিবারকে প্লাস্টিক সিট দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল।
মির্জা আব্বাস বলেন, বিএনপির আগে ত্রাণের এত বড় বহর নিয়ে কোনো রাজনৈতিক দল রোহিঙ্গাদের কাছে আসেনি। বিএনপির আগে অন্য কোনো রাজনৈতিক দল রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ায়নি, রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার নিয়ে কথা বলেনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম, কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান কাজল, কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীম আরা স্বপ্না, জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির খান জুয়েল প্রমুখ।

Top