ঢাকা, ||

নারী কনস্টেবলের আত্মহত্যা


জাতীয়

প্রকাশিত: ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের গৌরীপুর থানায় নারী পুলিশ ব্যারাকে হালিমা আক্তার নামে এক পুলিশ কনস্টেবলের আত্মহত্যার ঘটনায় গৌরীপুর থানার সাব-ইনস্পেক্টর মিজানুল ইসলামকে পুলিশলাইনে ক্লোজড করা হয়েছে।রোববার রাতে ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) এস এ নিয়াজী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এ নিয়াজীকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি তিন দিনের মধ্যে রির্পোট দেবে বলে জানা গেছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, হালিমা গৌরীপুর থানায় ডিউটি ছেড়ে ব্যারাকে যান। কিছুক্ষণ পর রোববার বিকেল ৩টার দিকে ব্যারাক থেকে অগ্নিদগ্ধ কনস্টেবল হালিমা আক্তারকে প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নেয়া হয়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ভালুকায় তিনি মারা যান বলে গৌরীপুর থানা পুলিশের ওসি দেলোয়ার আহম্মদ জানান।

ঘটনার খবর পেয়ে থানায় ছুটে আসেন ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এ নিয়াজী ও গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার। এ সময় থানায় ডিউটিরত এসআই মিজানুল ইসলামকে গাড়িতে করে ময়মনসিংহের উদ্দেশে নিয়ে যান।

জানা যায়, এসআই মিজানুল ইসলামের সঙ্গে দীর্ঘদিন যাবত এ নারী কনস্টেবলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। প্রেম সংক্রান্ত ঘটনার জের ধরেই শরীরে আগুন ধরিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেন।

২০১১ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন হালিমা আক্তার। তার বাড়ি নেত্রকোণা জেলার পূর্বধলা উপজেলার গৌরাকান্দা গ্রামে। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা হেলাল উদ্দিন আকন্দের মেয়ে।

Top