ঢাকা, ||

দশমিনায় আদালতের নিষেধাঞ্জা না মেনে বিবাদী কর্তৃক জমিতে আমন ধান রোপন ।


বরিশাল

প্রকাশিত: ৯:৫৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭

দীন মোহাম্মাদ দীনু

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি

সঞ্জয় ব্যানার্জী, দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পটুয়াখালী জেলার দশমিনা উপজেলার বাশবাড়িয়া ইউনিয়ানের বাশবাড়িয়া গ্রামের এস.এ রেকর্ডীয় মালিকদের ওয়ারিশদের পৈত্তিক জমাজমি সংক্রান্ত বিরোধ প্রায় ৮ বছরেরও নিস্পত্তি হয়নি। উভয় পক্ষের বিরোধ চরমে পৌছেছে। যার ফলে উভয় গ্রুপ প্রতিনিয়ত বসতবাড়ি. পুকুর ও ফসলী জমির ফসল নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে।চলতি বছরের ১৩/০৩/২০১৭ তারিখ পটুযাখালী দে; মো; নং ১০৬/২০১৭ আদালতে মামলা দায়ের করেন মামলা চলমান দুইপক্ষের আইনজিবীদের যুক্তিতর্ক্য শেষে জমাজমির সকল কাজকর্ম বন্দের আদেশ করেন পটুয়াখালী সিনিয়ার সহকারী জজ । আদালতের আদেশ অমান্য করে গতকাল রবিবার সকালে বিরোদীয় জমিতে আমন ধান রোপন করেন বিবাদী গন। গতমাসের ২৩/৮/২০১৭ইং তারিখ আদালতের নিষেধাঞ্জা জারি করেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বাশবাড়িয়া ইউনিয়ানের বাশবাড়িয়া মৌজার রেকর্ডীয় মালিক জবান আলী ও জোনাব আলী দুই ভাইয়ের ওয়ারিশদের মধ্যে ১একর ১৬শতাংশ জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ সৃষ্টি হয় । উভয় বিভিন্ন মামলা মোকদ্দমায় দায়ের করেছেন । ওই মামলা নিস্পত্তি না হওয়ার কারনে উভয়ের মধ্যে জমির মালিকানায় জটিলতা রয়েই গেছে। এর প্রেক্ষিতে জমি দখল ও বেদখল করতে নানান তৎপরতা উভয় উভয়ের বিরুদ্ধে করে আসছে। এতে উভয় পক্ষ আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির সম্মূখীন হচ্ছে।

স্থানীয় সুএে জানা যায় বিরোধীয় জমির মালিক জবান আলীর ওয়ারিশের কিন্তু লোকবল না থাকার কারনে জোড় করে জমি দক্ষল করিতে চান জোনাব আলীর ওয়ারিশগন। নিজের জমি দক্ষলে থাকা সত্যেও জবান আলীর ওয়ারিশের জমি দক্ষল করিতে চায়। এ কারনে কারনে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলছে। মো নুর ইসলাম বাদী হয়ে মো মো.জাহাঙ্গীর আলম মৃধা গং এর বিরুদ্বে মামলা করেন । এবং জাহাঙ্গীর আলম মৃধা বাদী হয়ে মো. নুর ইসলাম গংদের বিরুদ্বে পটুয়াখালী সিনিয়ার জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে কথা হয় বিবাদী মো:জাহাঙ্গীর হোসেন মৃধা(৫৫)এর কাছে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন,আমরা পিতার পৈত্তিক এবং অন্যান্য ওয়ারিশদের কাছে থেকে কবলা দলিলমূলে জমি ভোগ দখলে আছি।
এ ব্যাপারে কথা হয় বাদীর আইনজিবী মো.কামরুল ইসলামের সঙ্গে তিনি বলেন আদালত যে আদেশ দিয়েছেন তাতে বিরোদীয় জমিতে কেউ কোন ফসল রোপন করিতে পারিবেনা। যদি কেউ করে থাকে তাহলে আদালতের আদেশ অমান্য করেছে বলে জানান।

Top