ঢাকা, ||

জাম্বুরা ফলের বহুগুণ


লাইফস্টাইল

প্রকাশিত: ১০:৩৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০১৭

দীন মোহাম্মাদ দীনু

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি

এম.আর.প্রিন্স : ফরমালিন এবং বিষ মুক্ত দেশীয় জাম্বুরা ফল এখন বাজারে । জ্বর সর্দি-কাশি সহ অনেক ক্ষেত্রেই এই ফল দারুণ উপকারী । জাম্বুরা বা বাতাবী লেবু এক প্রকার লেবু জাতীয় টক-মিষ্টি ফল। এর ইংরেজি নাম Pomelo (pummelo বা pommelo) এবং বৈজ্ঞানিক নাম Citrus maxima বা Citrus grandis। বিভিন্ন ভাষায় এটি পমেলো, জাবং, শ্যাডক ইত্যাদি নামে পরিচিত। কাচা ফলের বাইরের দিকটা সবুজ এবং পাকলে হালকা সবুজ বা হলুদ রঙের হয়। এর ভেতরের কোয়াগুলো সাদা বা গোলাপী রঙের। এর খোসা বেশ পুরু এবং খোসার ভিতর দিকটা ফোম এর মত নরম । জাম্বুরা নামে এটি বেশি পরিচিত। বর্ষার শেষ পর্যায় থেকে শুরু করে শীত আসার আগ পর্যন্ত জাম্বুরার পূর্ণ মৌসুম। বাজারে এখন প্রচুর পাওয়া যাচ্ছে এই ফল। ভিটামিন আর খনিজ উপাদানে পরিপূর্ণ জাম্বুরা খাওয়ার উপকারিতা অনেক।

জাম্বুরায় ভিটামিন ‘সি’ প্রচুর পরিমাণে আছে। প্রতিদিন একজন পূর্ণ বয়স্ক মানুষের যতটা ভিটামিন ‘সি’ প্রয়োজন, একটা জাম্বুরাতে তার চেয়ে বেশি পাওয়া যায়। ঠান্ডা, সর্দি-জ্বর ইত্যাদি সমস্যায় জাম্বুরা বেশ উপকারী। এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। ফলে রসের সঙ্গে সঙ্গে অনেক আঁশও খাওয়া হয়ে যায়। এই আঁশ হজম ও বিপাকক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে, ওজন কমাতে সাহায্য করে এবং অন্ত্রের ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়। জাম্বুরায় কারনিটিন পামিটয়েলট্রানসফারেজ নামের এক ধরনের উৎসেচক আছে। এটা শরীরের ওজন কমাতে সহায়ক।


জাম্বুরায় আরও আছে পটাশিয়াম। এটি রক্তনালি প্রসারিত করে ও রক্তচাপ কমায় এবং হৃদ্যন্ত্র ভালো রাখে। পায়ের নানা রকমের ব্যথা এবং হাড় ক্ষয়রোধেও জাম্বুরার ভূমিকা রয়েছে। তবে পটাশিয়াম থাকার কারণে কিডনি বিকলতার রোগীরা জাম্বুরা বেশি পরিমাণে খেতে পারবেন না। আবার যাঁদের রক্তচাপ কম, তাঁদেরও একটু সাবধানে খেতে হবে। এটা দারুণ রুচি বর্ধক । পুষ্টি বিশেষজ্ঞদের মতে, অতি সহজলভ্য তুলনামূলক কমমূল্যের এই ফলটিতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও প্রচুর পরিমানে ভিটামিন রয়েছে তা সকলেরই জানা এবং খাওয়া প্রয়োজন ।

Top