ঢাকা, ||

জাবিতে শিক্ষার্থীদের মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষক-শিক্ষাথী ঐক্যমঞ্চের মৌন মিছিল


ক্যাম্পাস

প্রকাশিত: ৭:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭

দীন মোহাম্মাদ দীনু

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীদের উপাচার্যের বাসভবন ভাঙচুরের প্রেক্ষিতে প্রশাসনের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মৌন মিছিল করেছে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্যমঞ্চের সদস্যরা।

সোমবার বেলা ১১ টায় বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে থেকে একটি মৌন মিছিল শুরু হয়। মিছিলটি বিশ^বিদ্যালয়ের অমর একুশে হয়ে বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ঐক্যমঞ্চের আহ্বায়ক অধ্যাপক নাসিম আখতার হুসাইন, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শামীমা সুলতানা, ঐক্যমঞ্চের মুখপাত্র সহযোগী অধ্যাপক রায়হান রাইন, ইতিহাস বিভাগের বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আনিছা পারভীন জলীসহ শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

এসময় অধ্যাপক নাসিম আখতার হুসাইন শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের দেওয়া মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

মৌন মিছিলে শিক্ষার্থীদের দাবি সমূহ:

শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে করা মিথ্যা মামলার প্রত্যাহার করা।
পুলিশি হামলার বিচার করা।
পক্ষপাত দুষ্ট তদন্ত কমিটি বাতিল করা।

উল্লেখ্য, গত ২৬ মে জাবি সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বাসের ধাক্কায় নাজমুল হাসান রানা ও মেহেদী হাসান আরাফাত নামের দুই শিক্ষার্থীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ এবং নিরাপদ সড়কসহ সাত দফা দাবিতে পরদিন ২৭ মে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। বিকেলবেলা পুলিশ রাবার বুলেট, টিয়ারশেল ছুড়ে এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা, সাংবাদিকসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। পরে পুলিশি হামলার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের বাসভবনে গিয়ে ভাঙচুর ও কয়েকজন শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেন বলে অভিযোগ উঠে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওইদিন রাতে উপাচার্যের বাসভবনে অনুষ্ঠিত জরুরি সিন্ডিকেট সভা থেকে ৩১ শিক্ষার্থীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামাসহ মোট ৫৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা এবং অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। মধ্যরাতে উপাচার্যের বাসভবন থেকে ৪২ শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশ। পরে প্রশাসনের মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ২৮ মে গ্রেফতারকৃত ৪২ শিক্ষার্থীকে জামিনে মুক্তি লাভ করে।

Top