ঢাকা, ||

ঘুষ নিতে গিয়ে পুলিশকেই পেটাল পুলিশ (ভিডিও)


এক্সক্লুসিভ

প্রকাশিত: ১০:১৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

চাঁদা তুলতে গিয়ে লরি চালক তো বটেই, এমনকী প্রতিবাদী পুলিশ কনস্টেবলকেই পেটালেন এক ট্রাফিক পুলিশের অফিসার। এমনই মারাত্মক অভিযোগকে কেন্দ্র করে গভীর রাতে তোলপাড় হল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ।
পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযুক্ত এই অফিসার কয়েক মাস আগে এক আবগারি অফিসারকেও ধরে মারধর করেছিলেন। অভিযুক্তের নাম জামালউদ্দিন।

ওই পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে রায়গঞ্জের শিলিগুড়ি মোড়ে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক ও রায়গঞ্জ বালুরঘাট রাজ্য সড়কের সংযোগস্থলে পুলিশি তোলাবাজির
বিরুদ্ধে শুক্রবার গভীর রাতে লরি চালক ও স্থানীয় বাসিন্দারা বিক্ষোভ দেখান। অভিযোগ, ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় বেশ কয়েকজন লরি চালককে মারধর করেন অভিযুক্ত ওই ট্রাফিক ইন্সপেক্টর। আহত হন কয়েকজন লরি চালক।

এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দা ও লরি চালকরা। চার রাস্তার মোড়ে অবরোধ করেন তাঁরা। ঘণ্টা দু’য়েকের মধ্যেই অবস্থা আয়ত্বের বাইরে চলে গেলে ঘটনাস্থলে বিরাট পুলিশ বাহিনী পৌঁছয়। প্রায় তিন ঘণ্টা পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

অভিযোগ, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর জামালউদ্দিন শুধু গাড়ির চালকদের মেরেই ক্ষান্ত হননি, কর্তব্যরত এক কনস্টেবলকেও তিনি মারধর করেন। কারণ, ওই কনস্টেবল লরি চালকদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন।

এলাকার কাউন্সিলর পরিস্থিতি সামাল দিতে এসে ওই ট্রাফিক অফিসারের ঘুষ নেওয়ার কথা স্বীকার করেন। বিষয়টি নিয়ে সরবও হন তিনি। যদিও, অভিযুক্ত অফিসার জামালুদ্দিন ঘুষ নেবার কথা মানতে চাননি।

পুলিশসূত্রে জানা গিয়েছে, এর আগে গত ১৫ জুন শিলিগুড়ি মোড় এলাকাতেই প্রকাশ্যে আবগারি দফতরের এক আধিকারিককে মারধর করেন এই ট্রাফিক অফিসার। সেবারে ওই ট্রাফিক অফিসারের বিরুদ্ধে রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করাও হয়েছিল।

পুলিশ সুপার শ্যাম সিং জানিয়েছেন, “শুক্রবার রাতে শহরের শিলিগুড়ি মোড়ে ট্রাফিক অফিসারের ভূমিকা ঠিক ছিল না। আমি গোটা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। সেই অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’’

দেখুন মারামারির সেই ভিডিও

Top