ঢাকা, ||

গরমে হৃদপিন্ড সুস্থ রাখার ৫টি কার্যকারী টিপস


স্বাস্থ্য

প্রকাশিত: ৭:৪৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৩, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

গরমের সময় তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে আমাদের শরীরের জলীয় অংশের পরিমাণ কমতে থাকে বলে অনেক বেশি তরল গ্রহণ করার প্রয়োজন হয়। শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখা এবং শরীরকে ঠান্ডা রাখার জন্য হৃদপিণ্ড অনেক দ্রুত রক্ত পাম্প করতে থাকে। বেশিরভাগ মানুষই এই পরিবর্তনকে মানিয়ে নেয় কোন সমস্যা ছাড়াই।

কিন্তু যাদের হৃদপিণ্ড দুর্বল বা ক্ষতিগ্রস্থ তাদের হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, ডিহাইড্রেশনের মত সমস্যাগুলো হতে পারে, যা কোন কোন ক্ষেত্রে মৃত্যু পর্যন্ত ডেকে আনে। তাই গরমের সময়ে হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখার জন্য যা করা প্রয়োজন সে বিষয়ে বিশেষজ্ঞের ৫টি পরামর্শ প্রকাশ করেছে জনপ্রিয় অনলাইন পোর্টাল প্রিয়ডটকম। চলুন জেনে নিই।

১। হাইড্রেটেড থাকুন

ডিহাইড্রেশন বা পানি শূন্যতার ফলে আরট্রিয়াল ফাইব্রিলেশন বা স্ট্রোক হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। যেহেতু গরমের সময় শরীর থেকে অতিরিক্ত পানি বের হয়ে যায় তাই শরীরকে হাইড্রেটেড রাখার জন্য পানি, ডাবের পানি, স্যুপ ও ফলের জুস পান করা উচিৎ। ৫০ এর বেশি বয়সের মানুষেরা বুঝতেই পারেন না যে তাদের তৃষ্ণা পেয়েছে এবং তারা প্রায়ই ডিহাইড্রেশন বা হিট স্ট্রোকের শিকার হন। তাই তৃষ্ণা না পেলেও পানি পান করার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

২। বুদ্ধিমত্তার সাথে ঔষধ গ্রহণ করুন

হৃদরোগ এবং হাইপারটেনশনের রোগীদের ডাইইউরেটিক বা মূত্রবর্ধক ঔষধ গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হয়। গরমের সময় এধরণের ঔষধ সেবনের ফলে পানিশূন্যতার অবস্থাকে আরো খারাপ করে দেয় প্রস্রাবের পরিমাণ বৃদ্ধি করার মাধ্যমে। এমনকি অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট ও অ্যান্টিহিস্টামিন জাতীয় ঔষধ সেবন করলে ঘাম কমে যেতে পারে বলে পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়। যদি আপনার মাথা ঝিমঝিম করে বা মাথা ঘুরায় তাহলে দ্রুত আপনার চিকিৎসককে দিয়ে পরীক্ষা করান গরমের সময়ে ঔষধের মাত্রা কমিয়ে দেয়ার জন্য।

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি – ঠিকানা – YouTube.com/HealthBarta)

৩। ক্যাফেইন বা অ্যালকোহল সমৃদ্ধ পানীয় পান করা সীমিত করুন

গরমের সময় ক্যাফেইন বা অ্যালকোহল সমৃদ্ধ পানীয় পান করার ফলে ডিহাইড্রেশন বৃদ্ধি পায় বলে হৃদপিণ্ডের জটিলতা সৃষ্টি হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। যাদের অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়েছে অথবা যাদের স্টেন্ট (রক্তনালীর বাঁধা দূর করার জন্য রক্তনালীর ভেতরে নালীর মত বস্তু অস্থায়ীভাবে স্থাপন করা হয়) এবং কৃত্রিম ভালভ লাগানো হয়েছে তাদের অনেকবেশি সতর্ক থাকা প্রয়োজন। কারণ ডিহাইড্রেশনের ফলে রক্ত ঘন হয়ে যায় এবং স্টেন্টকেও ব্লক করে ফেলতে পারে। একারণেই বেশি বেশি পানি পান করা প্রয়োজন।

৪। বাহিরের কাজ সীমিত করুন

বাহিরে ব্যায়াম করার পরামর্শ দেয়া হয় সবসময়। কিন্তু গরমের সময় হৃদপিণ্ডের চাপ কমানো উচিৎ যা গরমের তাপের ফলে তৈরি হয়। একারণেই বাহিরে হাঁটা, দৌড়ানো বা বাগানের কাজ করাকে সীমিত করুন, বিশেষ করে সকালে না করার পরামর্শ দেয়া হয়। সকালে এবং দুপুরের দিকে যখন তাপমাত্রা অনেকবেশি থাকে তখন ঘরের মধ্যে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়। যদি ওয়ার্কআউট করার পরিকল্পনা করেন তাহলে হালকা রঙের এবং সুতির কাপড় পরুন।

৫। আপনার চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন

করোনারি হার্ট ডিজিজের রোগীদের গরমের সময়ে বারবার এঞ্জিনা (কন্ঠনালী প্রদাহ বা হৃদপিণ্ডে কম রক্ত প্রবাহের কারণে বুকে ব্যথা হয়) হয় হৃদপিণ্ডে চাপ বৃদ্ধি পাওয়ার এবং অক্সিজেনের অনেকবেশি চাহিদার কারণে। তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সময়ে হৃদরোগীদের প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। স্ট্রোকের লক্ষণের বিষয়ে সন্দেহ হওয়া মাত্রই আপনার নিকটস্থ হাসপাতালে দ্রুত যোগাযোগ করুন জটিলতা এড়ানোর জন্য।

Top