ঢাকা, ||

ঈদের পর ৩৬ ও ৩৭তম বিসিএসের ফলাফল


ক্যাম্পাস

প্রকাশিত: ৯:৩৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০১৭

দীন মোহাম্মাদ দীনু

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি

পবিত্র ঈদুল আযহার পরই ৩৬তম ও ৩৭তম বিসিএসের ফলাফল প্রকাশের পরিকল্পনা করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এর মধ্যে ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফলাফল আগে প্রকাশ করা হবে। তারপর ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা গ্রহনের চিন্তা-ভাবনা রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক ইত্তেফাককে বলেন, সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত এবং ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করতে পারবো বলে আশা করছি। দ্রুত ফলাফল প্রকাশের জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

পিএসসি সূত্রে জানা গেছে, ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত এবং ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার গ্রহনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। চলতি আগস্ট মাসে ফলাফল প্রকাশের পরিকল্পনা থাকলেও আসন্ন ঈদ এবং সরকারি ছুটি মিলিয়ে সেপ্টেম্বরে ৩৬তম বিসিএসের ফলাফল প্রকাশ করা হচ্ছে। ক্যাডার ডিস্ট্রিবিউশন সফটওয়ারের (ক্যাডস) মাধ্যমে ৩৬তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করবে পিএসসি। যদিও ক্যাডসের পাশাপাশি ম্যানুয়ালি ফলাফলও প্রস্তুত থাকবে। পরীক্ষামুলক ৩৬তম বিসিএস থেকে এই পদ্ধতি চালু করতে যাচ্ছে সংস্থাটি। এর আগে নন-ক্যাডার পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশে ‘সার্চ ইঞ্জিন’ সফটওয়ার ব্যবহার করে সফলতা পেয়েছে কমিশন। এরই ধারাবাহিকতায় ক্যাডার পরীক্ষায় আসছে ‘ক্যাডস’।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ৩৬তম বিসিএসে ম্যানুয়ালির পাশাপাশি ‘ক্যাডস’ সফটওয়ার ব্যবহার করা হবে। প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে আগামী দিনগুলিতে স্বল্প সময়ে পিএসসির পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

গত ১২ মার্চ থেকে ৩৬তম মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়ে গত ৭ জুন শেষ হয়। গত ৭ ফেব্রুয়ারি ৩৬তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে পিএসসি, যাতে উত্তীর্ণ হন ৫ হাজার ৯৯০ জন। বিভিন্ন ক্যাডারে ২ হাজার ১৮০ জনকে নিয়োগ দিতে ২০১৫ সালের ৩১ মে ৩৬তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ২ লাখ ১১ হাজার ৩২৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। ১০ ফেব্রুয়ারি প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফলে উত্তীর্ণ হন ১৩ হাজার ৮৩০ জন। গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে আবশ্যিক বিষয়ের লিখিত পরীক্ষা শেষ হয় ৬ সেপ্টেম্বর, আর পদ সংশ্লিষ্ট বিষয়ের পরীক্ষা হয় ৫ থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত।

৩৮এর আগেই ২৭তম বিসিএসের ফল
৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারী পরীক্ষা শুরুর আগেই ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করতে কমিশন। ৩৬তম বিসিএসের পরপরই এই বিসিএসের ফলাফল প্রকাশ করা হবে। গত ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকার আটটি এবং ঢাকার বাইরে ছয় বিভাগীয় শহরে ছয়টি কেন্দ্রে ৮ হাজার ৫২২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন। ১ হাজার ২২৬ জনকে নিয়োগ দিতে গত ২০১৬ সালের ২৯ ফেব্রুয়ারি ৩৭তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। ৩০ সেপ্টেম্বর প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নেন ২ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ জন।

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলি
আগামী অক্টোবরের শেষ সপ্তাহেই ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারী পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন পিএসসির চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারী পরীক্ষা অক্টোবরের মধ্যে গ্রহনের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা রয়েছে আমাদের।

গত ১০ জুলাই থেকে ৩৮তম বিসিএসের আবেদন প্রক্রিয়া গ্রহন শুরু করে পিএসসি। আগামীকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এই বিসিএসের আবেদন গ্রহন করা হবে। ২৪ ক্যাডারে দুই হাজার ২৪টি শূন্য পদে নিয়োগের সুপারিশ করতে গত ২০ জুন সার্কুলার জারি করে পিএসসি। এই বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে ৩০০, পুলিশে ১০০সহ সাধারণ ক্যাডারে ৫২০টি, কারিগরি ও পেশাগত ক্যাডারে ৫৪৯টি এবং শিক্ষা ক্যাডারে ৯৫৫টি পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হবে। এই বিসিএস পরীক্ষায় ২০০ নম্বরের বাংলাদেশ ইতিহাস থেকে ৫০ নম্বর কমিয়ে আনা হয়েছে। সেখানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস যুক্ত করে ৫০ নম্বর নির্ধারণ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সাত বিভাগের পাশাপাশি এবার নতুন বিভাগ ময়মনসিংহেও পরীক্ষা নেয়া হবে।

Top