ঢাকা, ||

ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ


ঢাকা

প্রকাশিত: ৬:৫৮ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) এক সদস্য এক নারী বিচারপ্রার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগে গত রোববার রাতে ওই নারী কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেছেন।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী ওই নারীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই নারী উপজেলার মৌচাক এলাকার খান ব্রাদার্স নামের একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। প্রায় আড়াই মাস আগে ওই কারখানার কাজ ছেড়ে দেন এবং মৌচাক এলাকার একটি বিউটি পারলারে কাজ নেন। পারলারটির মালিক ওই নারীকে বিভিন্ন অনৈতিক কাজ করার জন্য চাপ দিতে থাকেন। প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ওই নারী কাজ ছেড়ে দিয়ে বাড়ি চলে যান। পরে পারলারের মালিক ওই নারীর বিরুদ্ধে ২০ হাজার টাকা ও সোনার গয়না চুরির অভিযোগ তোলেন।

ওই নারীর বাড়ি যে এলাকায়, পারলারের মালিক বিষয়টি সেখানকার ইউপি সদস্য মো. আলাল উদ্দিনকে জানান। পরে ওই ইউপি সদস্য ওই নারীকে বিচারের জন্য পারলাটিতে যেতে হবে বলে জানান। এতে রাজি হলে চার-পাঁচ দিন আগে আলাল কাউকে কিছু না বলে তাঁর মোটরসাইকেলে ওই নারীকে উঠিয়ে মৌচাকের উদ্দেশে রওনা হন। মৌচাকে না গিয়ে আলাল ওই নারীকে উপজেলার সিনাবহ এলাকায় আনন্দ পার্কে নিয়ে যান। ওই পার্কের একটি কক্ষে নিয়ে তিনি ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান। একপর্যায়ে ওই নারী কৌশলে পার্কের কক্ষ থেকে পালিয়ে বাড়ি চলে যান এবং বিষয়টি তাঁর মা-বাবাকে জানান। পরে বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানানো হয়। চেয়ারম্যান স্থানীয়ভাবে বিষয়টির মীমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। থানায় যাওয়ার চেষ্টা করলে ইউপি সদস্য আলালের লোকজন ওই নারীসহ তাঁর বাড়ির সবাইকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে পুলিশের সহযোগিতায় রোববার রাতে কালিয়াকৈর থানায় গিয়ে ওই নারী লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগের বিষয়ে ইউপি সদস্য আলাল উদ্দিন বলেন, ‘ঝামেলাটি মীমাংসা করার জন্য ওই নারীকে নিয়ে মৌচাক যাই। সেখান থেকে ওই নারী পালিয়ে যায়।’ ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগটি মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে তিনি দাবি করেন।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে

Top