ঢাকা, ||

আপন জুয়েলার্সের জব্দকৃত মালামাল ফেরত বিষয়ে হাইকোর্টের রুল


আইন আদালত

প্রকাশিত: ৮:১৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০১৭

আব্দুল্লাহ আল নোমান

বরগুনা প্রতিনিধি

 

 

আপন জুয়েলার্সের মালিক গুলজার আহমেদ এবং তার দুই ভাই ধর্ষণের মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের বাবা দিলদার আহমেদ সেলিম ও আজাদ আহমেদকে অর্থপাচারের মামলায় চার সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।
গতকাল বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ জামিন মঞ্জুর করেন।
এ দিকে আপন জুয়েলার্সের জব্দ করা মালামাল ফেরত দিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একই সাথে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের দেয়া নোটিশ কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। হাইকোর্টের পৃথক দুইটি বেঞ্চ গতকাল পৃথকভাবে এ আদেশ দেন। বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো: ফারুকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান, শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের দুই সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
দিলদার আহমেদ ও তার দুই ভাইয়ের করা পৃথক পাঁচটি রিট আবেদনের ওপর প্রাথমিক শুনানি শেষে এ আদেশ দেয়া হয়। আদালতে রিট আবেদনকারী পে আইনজীবী ছিলেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ। রাষ্ট্রপে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার কাজী জিনাত হক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জাকির হোসেন রিপন।
অপর দিকে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ তিন ভাইয়ের জামিন মঞ্জুর করেন। তিন ভাইয়ের পে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এ এম আমিনউদ্দিন।
উল্লেখ্য, রেইনট্রি হোটেলে গত ২৮ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের শিকারের অভিযোগে ৬ মে বনানী থানায় মামলা হয়। গত ৪ জুন শুল্ক বিভাগ আপন জুয়েলার্সের গুলশান ডিএনসিসি মার্কেট, উত্তরা, মৌচাক, সীমান্ত স্কয়ারের শাখাসহ পাঁচটি শাখা থেকে প্রায় ১৫ মণ সোনা ও ৪২৭ গ্রাম ডায়মন্ড জব্দ করার পর তা রাষ্ট্রীয় অনুকূলে বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা রাখে।
এরপর দিলদার আহমেদ সেলিম এবং তার দুই ভাই গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদের বিরুদ্ধে কর ফাঁকি ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ পৃথক পাঁচটি মামলা করে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর।

Top